বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট চাচ্ছেন প্রার্থীরা
প্রকাশ: বুধবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২৩, ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়া দলীয় প্রার্থীরা প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। এবারের নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি বাড়ানোকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছে রাজনৈতিক দলগুলো। তাই ভোটারদের কাছে গিয়ে নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট চাচ্ছেন প্রার্থীরা।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা সকাল থেকেই নির্বাচনি এলাকায় সশরীরে উপস্থিত থেকে এবং দলীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেছেন।

নির্বাচনি প্রচারণায় গিয়ে এবার ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে চক্রান্তকারীদের জবাব দেওয়া হবে মন্তব্য করে ঢাকা-১৭ আসনের নৌকার প্রার্থী মোহাম্মদ এ আরাফাত বলেন, আওয়ামী লীগের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী ৭ জানুয়ারি নৌকা মার্কায় ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে সকল দেশি-বিদেশি চক্রান্তকারীদের বিরুদ্ধ আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। একটি আধুনিক, প্রগতিশীল, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করে শেখ হাসিনাকে পুনরায় ক্ষমতা আনতে হবে।

দোহারে নির্বাচনি এলাকায় ভোটের জনসংযোগ কালে ঢাকা-১ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী সালমান এফ রহমান বলেন, বিএনপি ছাড়াও নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে সাধারণ মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিতে পারলেই নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে। আওয়ামী লীগ টানা ১৫ বছর ক্ষমতায় আছে বলেই দেশে অনেক বড় বড় অবকাঠামোর উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। এখন সবার ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ আছে। অস্বীকারের সুযোগ নেই আমাদের সবার ব্যক্তিগত জীবনে ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে অনেক উন্নয়ন হয়েছে।

সাভারের হেমায়েতপুর বাসস্ট্যান্ডে বিকালে নির্বাচনি জনসভার মধ্য দিয়ে প্রচারণা শুরু করেন ঢাকা-২ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। এসময় তিনি বলেন, আগামীতে সরকারের লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ গড়া। আর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পূর্বশর্ত হচ্ছে ভোটারদের অংশগ্রহণ। এসময় আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার অংশীদার হতে ভোটারদের ৭ জানুয়ারি নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

পুরান ঢাকার ধোলাইখাল থেকে দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে এই বিজয় শোভাযাত্রা বের করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন। কখনও গাড়িতে আবার কখনও হাতিতে চড়ে শোভাযাত্রায় অংশ ঢাকা-৬ আসনে এই নৌকার প্রার্থী। শোভাযাত্রার সময় মোহাম্মদ সাঈদ খোকন নৌকায় ভোট এবং দোয়া চেয়ে জনগণের মধ্যে লিফলেট বিতরণ করেন। এসময় নৌকার মাঝি করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সাঈদ খোকন বলেন, ঢাকাবাসী আমার সঙ্গে আছেন। আশা করি ঢাকা-৬ আসন থেকে বিজয়ী হতে পারবো।

এদিকে আওয়ামী লীগ থেকে ছাড় পাওয়া ঢাকা-১৮ আসনের জাতীয় পার্টির প্রার্থী শেরীফা কাদের উত্তরখানে মাজার জিয়ারতের মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করেন। বেলা ২টায় পোলারটেকে স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে বেশ কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ ও গণসংযোগ করেন। এসময় শেরীফা কাদের বলেন, নির্বাচিত হলে দলমত নির্বিশেষে সবার সার্বিক উন্নয়নে কাজ করবো। নির্বাচনি এলাকার সর্বস্তরের মানুষকে সঙ্গে করে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতায় সন্ত্রাস নির্মূল ও মাদক মুক্ত করা হবে বলেও জানান জাতীয় পার্টি এই প্রার্থী।

গতকাল সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) প্রতীক পাওয়ার পরপরই নির্বাচনি প্রচারণায় নেমেছেন ঢাকা-৪ আসনের জাতীয় পার্টির প্রার্থী সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা। মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) দ্বিতীয় দিনের প্রচারণায় দিনব্যাপী তিনি শ্যামপুরের ৪৭ নম্বর ওয়ার্ড এবং কদমতলী থানার ৫৮ নম্বর ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন। এসময় বাবলা কয়েকটি নির্বাচনি মিছিল ও পথসভায় বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে বাবলা বলেন, জাতীয় পার্টি সবসময় দেশের কল্যাণে কাজ করেছে। আমাদের প্রতিটি নেতাকর্মী শান্তিপ্রিয়। আমাদের সহিংসতায় বিশ্বাস করি না। আর জনগণও শান্তির পক্ষে। আমি বিশ্বাস করি— এ এলাকার জনগণ যদি তাদের ভোট দেওয়ার সুযোগ পায়, সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তাহলে লাঙ্গল মার্কা বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করবে।

 







সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ